ঢাকাMonday , 18 October 2021
  1. Engineering
  2. অপরাধ
  3. অর্থনীতি
  4. আইন আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আবহাওয়া ও দূর্যোগ
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন
  9. কবিতা
  10. কুরআন/সূরা
  11. কৃষি
  12. কোভিড-১৯
  13. খেলাধুলা
  14. গনমাধ্যম
  15. জব
বিজ্ঞাপনঃ আপনি স্ববলম্বি হতে চান? ১০০% নিশ্চয়তায় দৈনিক আয় করতে telegram এ যোগাযোগ করুন, +85295063265 @krakenvip01' বা, @kraken_Asst     
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র রাসেলের জন্মদিনে বাংলাদেশ যুবলীগের আলোচলা সভা

bd-tjprotidin
October 18, 2021 5:40 pm
Link Copied!

 

তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিদিন, ঢাকা, বাংলাদেশ :
আজ বুধবার (১৮ অক্টোবর) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ রাসেলের ৫৮ তম জন্মদিন উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, প্রিয় বঙ্গবন্ধু গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন ও চলমান আশ্রয় কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী, শেখ রাসেলের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বলেন-শেখ রাসেল ছিলেন আমার সহপাঠী, আমার খেলার বন্ধু। আমরা যখনই ঢাকায় আসতাম, তখনই শেখ রাসেলের খেলাধুলাসহ বিভিন্নভাবে সময় কাটাতাম। খেলার প্রতি রাসেলের প্রচণ্ড ঝোঁক ছিল।

রবিবার -আজ ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি) মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- রাজনীতিবিদ ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আসাদুজ্জামান নূর। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন-তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মোঃ মুরাদ হাসান, সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন-বিশিষ্ট রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন-বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ ও সঞ্চালনা করেন-বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মোঃ মাইনুল হোসেন খান নিখিল।

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সভাপতির বক্তব্যে চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ বলেন, আমাদের প্রতিটি সংখ্যালঘু ভাইয়েরা শেখ রাসেলের প্রতীক হিসাবে আজকে আত্মপ্রকাশ করেছে। শেখ রাসেলের নামকরণের মর্যাদা রাখতে আওয়ামী যুবলীগ সাম্প্রদায়িক শক্তির অমানবিক আগ্রাসন, নির্যাতন ও হত্যাকাণ্ড প্রতিহত করতে সর্বদা প্রস্তুত। মানুষের জীবন যাতে সুন্দর ও শান্তিময় হয়, সেই লক্ষ্যে কাজ করেছিলেন বার্র্ট্রান্ড রাসেল। তাই আমি ঘোষণা করছি, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ আমাদের সংখ্যালঘু ভাই-বোনদের অধিকার সংরক্ষণে সর্বদা প্রস্তুত। উগ্রবাদীদের থাবায় তাদের স্বাধীনতা ক্ষুণ্ণ হচ্ছে, যেটা ঠিক শেখ রাসেলের হত্যাকাণ্ডের মতো আরও একটা লজ্জা ও ব্যর্থতার বিষয় এবং মানবতার পরাজয় হিসাবে প্রতিফলিত হচ্ছে। সুতরাং তাদের অধিকার রক্ষা করা আমাদের আদর্শিক এবং নৈতিক দায়িত্ব।

যুবলীগ চেয়ারম্যান আরও বলেন, অবহেলিত, পশ্চাৎপদ, অধিকারবঞ্চিত শিশু-কিশোরদের আলোকিত জীবন গড়ার প্রতীক হয়ে বাংলাদেশের প্রতিটি লোকালয়ে ছড়িয়ে পড়ুক শেখ রাসেলের মর্ম; শেখ রাসেলের চারিত্রিক গুণাবলি ও তাঁর নামের প্রতীকী তাৎপর্য অনুধাবন করে বাংলার প্রতিটি যুবক-যুবতি জাগ্রত প্রগতিশীল যুবসমাজ হিসাবে আত্মপ্রকাশ করুক, এটাই আমাদের অঙ্গীকার। তিনি বলেন, এই প্রত্যয় ও অনুভূতি থেকে আমরা আজকের অনুষ্ঠানে আমাদের আশ্রয় কর্মসূচির দ্বিতীয় পর্ব হিসাবে বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় ২২টি ঘর জননেত্রীর উপহার হিসাবে যুবলীগের তরফ থেকে গৃহহীন মানুষদেরকে হস্তান্তর করছি।

প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প একটা যুগান্তকারী কাজ। অনেক উন্নত দেশও তাঁদের গৃহহীন জনগণকে গৃহদান করতে পারে না। কিন্তু আমাদের প্রধানমন্ত্রী সেই অসাধ্য সাধন করেছে এদেশের মানুষের জন্য। আমি বিনয়ের সাথে বলতে চাই, সংগঠন হিসেবে এই প্রথম বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগই একমাত্র সংগঠন যে নিজস্ব অর্থায়নে অসহায় ও গৃহহীনদের মাঝে ঘর নির্মাণ করে হস্তান্তর করছে। তিনি আরও বলেন, শেখ রাসেল আজ আবর্তিত হয়েছে সকল শিশুদের ওপর নির্যাতন ও নিষ্ঠুরতার প্রতীকী প্রতিবাদ হিসাবে। তিনি বিশ্বের নানা প্রান্তের নিহত শিশুদের স্মরণ করে বলেন-শেখ রাসেল শুধু একজন নয়, পৃথিবীর হাজার হাজার রাসেলের প্রতীক হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেছে। তিনি আরও বলেন-পৃথিবীতে প্রতি বছর হাজার হাজার রাসেলের অকাল মৃত্যু ঘটে। এক প্যালেস্টাইনেই গত দুই দশকে (২০০০-২০২১ সালের ভিতর) ৩ হাজার এর বেশি শিশুদেরকে হত্যা করা হয়েছে।

এই ২০২১ সালের গত মে মাসে প্রায় ৬৬ জন শিশুকে হত্যা করা হয়েছে গাজা এবং ওয়েস্ট ব্যাঙ্কে। ১৫ই আগস্টে শেখ রাসেলসহ আমার মামা আরিফ সেরনিয়াবাত ও মামাতো ভাই শিশু সুকান্ত বাবুকে হত্যা করা হয়েছে। আরিফ সেরনিয়াবাত ফুটবল খেলতে ভালবাসতো এবং গানের প্রকৃতিদত্ত সুন্দর কণ্ঠ ছিল তাঁর। আমার পরিবারে আরেক ৮ বছরের শিশু, আমার বোনের ছেলে দুই বছর আগে উগ্রবাদী জঙ্গি বোমা হামলায় শ্রীলঙ্কায় নিহত হয়েছে। আমি স্মরণ করছি যুবলীগের সাবেক চেয়ারম্যান জননেতা শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপি’র নাতি শহীদ জায়ান চৌধুরীকে। তিনি আরও বলেন-শেখ রাসেল দুনিয়ার সকল নির্যাতিত, নিপীড়িত শিশুর সাথে সাথে ঐ জায়ান চৌধুরীও প্রতিচ্ছবি ও প্রতিনিধি হিসাবে আজ আত্মপ্রকাশ করেছে। আমাদের সমাজে শিশু নির্যাতন বেড়ে চলেছে। এই দিকে আমাদের সবারই সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।

এদিকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী, শেখ রাসেলের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বলেন-শেখ রাসেল ছিলেন আমার সহপাঠী, আমার খেলার বন্ধু। আমরা যখনই ঢাকায় আসতাম, তখনই শেখ রাসেলের খেলাধুলাসহ বিভিন্নভাবে সময় কাটাতাম। খেলার প্রতি রাসেলের প্রচণ্ড ঝোঁক ছিল। অনেক সময় আমাদেরকে বাসা থেকে জোর করেই খেলার মাঠে নিয়ে যেত। শেখ রাসেল, শেখ জুয়েল, আরিফ সেরনিয়াবাত ও আমি ছিলাম সমবয়সী। আজকে রাসেল বেঁচে থাকলে অবশ্যই তিনি আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে আসতেন। তিনি আরও বলেন-৭৫’এর বেদনা আর শোককে শক্তিতে পরিণত করে আমাদেরকে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। যেভাবে আমাদের নেত্রী শোককে শক্তিতে রূপান্তরিত করে বিভিন্ন জেলায় জেলায় ঘুরে আওয়ামী লীগ সুসংগঠিত ও শক্তিশালী করেছেন। ব্যক্তি থেকে দলকে শক্তিশালী করতে হবে। ব্যক্তি যতই শক্তিশালী হোক না কেন, দলকে রাজনৈতিকভাবে শক্তিশালী না করতে পারলে কোন কিছু করার থাকবে না। আমাদের দলকে শক্তিশালী করতে হবে, তাহলেই আমরা ঘুরে দাঁড়াতে পারবো, যে কোন সাম্প্রদায়িক শক্তিকে মোকাবিলা করতে পারবো। যারা মনে করেছিল ’৭৫-এ বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে আওয়ামী লীগ নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে কিন্তু আওয়ামী যুবলীগ সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী ছিল বলেই ১৯৭৯ সালে আওয়ামী লীগ ঘুরে দাঁড়িয়েছিল। সেই শক্তিশালী সংগঠনের কারণেই আওয়ামী লীগ বার বার ক্ষমতায় এসেছে। তিনি আরও বলেন-বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে যেমন স্বাধীন বাংলাদেশ পেতাম না, তেমনি শেখ হাসিনার জন্ম না হলে আমরা উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ পেতাম না।

মুজিব আদর্শে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সকলে মিলেমিশে দেশ ও মানুষের জন্য কাজ করাই হলো স্বদেশ প্রেম। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা ও শেখ হাসিনা সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে – আগামীর ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানে একসাথে কাঁধেকাঁধ মিলিয়ে কাজ করে যেতে হবে।

 

(বিঃদ্রঃ মুক্তমতঃ তবে কেউ ফায়দা লুটতে সাধারণ হিন্দু বা মুসলিমদের বিপদগামী যেনো না করে সে বিষয়ে সকলের সতর্কতা ও প্রশাসনিক ভাবে কঠোর হওয়া উচিৎ। কোনো হিন্দু বা মুসলিম এর বিরুদ্ধে অবমাননা বা বিশৃঙ্খলা মুলক অভিযোগ পেলে সাথে সাথে দ্রুত নিরপেক্ষ তদন্তে সমাধান একান্ত প্রয়োজন। ছোট কোনো ক্লু কে বড় আকার ধারণ মোটেও সমিচিন নয়। বিরোধীচক্রান্ত বা কোনো স্বার্থবাদী বিশেষ মহলের চক্রান্তের বলি সাধারণ হিন্দু বা মুসলিম সম্প্রদায়ের মাঝে বিভেদ সৃষ্টি কোনোটাই কাম্য নয়। কারন সাধারণ হিন্দু বা মুসলিম জানেই না বিরোধীপক্ষ একটি বিশেষ স্বার্থ হাসিলের পায়তারা করে তাদের ক্ষতি করছে। যাকে বলে জ্বালাও পোড়াও রাজনীতি,আর এ ধরনের রাজনীতি (সরকার বিরোধী পক্ষ)  কারা করে তা দেশ ও বিশ্ব জানে। )

 

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।