ঢাকাSunday , 9 January 2022
  1. Engineering
  2. অপরাধ
  3. অর্থনীতি
  4. আইন আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আবহাওয়া ও দূর্যোগ
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন
  9. কবিতা
  10. কুরআন/সূরা
  11. কৃষি
  12. কোভিড-১৯
  13. খেলাধুলা
  14. গনমাধ্যম
  15. জব
বিজ্ঞাপনঃ আপনি স্ববলম্বি হতে চান? ১০০% নিশ্চয়তায় দৈনিক আয় করতে telegram এ যোগাযোগ করুন, +85295063265 @krakenvip01' বা, @kraken_Asst     
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বগুড়ার সোনাতলাতে হেভিওয়েট প্রার্থীরা নৌকা পায়নি কিন্তু বিজয় সুনিশ্চিত করে সমুন্নত থাকবে নৌকা-ভরাডুবির আশঙ্কা নয়

bd-tjprotidin
January 9, 2022 3:10 pm
Link Copied!

 

বগুড়া, সোনাতলা, অনলাইন নিউজ ডেস্ক :
আগামী ৩১ জানুয়ারী ২০২২ ইং (সোমবার) স্থানীয় সরকার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন (৬ষ্ঠ) ষষ্ঠ ধাপে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। ইতিমধ্যে নৌকা প্রতীক প্রত্যাশী আবেদন কারীদের যাচাই বাছাই করে নৌকা প্রতীক বরাদ্ব দিয়েছে কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ড। হেভিওয়েট নেতারা নৌকা না পেলেও তারা নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করবেন। তবে বর্তমান সময়ে বিভিন্নস্থানে নৌকার ভরাডুবির কারনে প্রবীন রাজনীতিবিদরা বলছেন যত্র-তত্রভাবে যাকে-তাকে মনোনয়ন দেয়ার কারনেই এই ভরাডুবির কথা ব্যক্ত করে। আবার অনেকেই মনে করছেন কিছু লোকের উসকানিতে ত্যাগী নেতাদের উসকিয়ে প্রতিহিংসা ও ক্ষমতা লোভী করে তুলছে অনেকেই। যাতে করে সৃষ্টি হচ্ছে গ্রুপিং এবং ফলশ্রুতিতে নৌকার ভরাডুবি হচ্ছে। নিজে ডুবে নৌকাকেও ডোবাচ্ছে। তবে সোনাতলায় নৌকা কে সমূন্নত রাখতে একযোগে কাজ করে জনগণের প্রত্যক্ষভোটে বিজয় সুনিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর।

অনেকেই মনে করেন এ বিষয়ে, পরবর্তী সময় নির্বাচনে তাদের ত্যাগ সততার কারনে মনোনয়ন পেতে পারে। আরোও জানা যায়, অনেকেই উসকানি মুলক কথ্যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে পাইতারা করে চলেছে একটি বিশেষ চক্রমহল। এসব কুন্দল ঠেকাতে কেন্দ্রীয়, জেলা, উপজেলা, ইউপি এবং সর্বশেষ শক্তিশালী ওয়ার্ড পর্যায়ের ত্যাগী তৃনমুল আওয়ামী লীগ ও সহয়োগি সংগঠনের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে নৌকার পক্ষে কাজ করা উচিৎ বলে তৃনমুল আশাবাদী। গ্রাম, পাড়া, মহল্লায় প্রচারণা ও জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে নৌকার উন্নয়ন ও উন্নত সেবা নিশ্চিতের লক্ষ্যে জনগনের ভোট প্রত্যাশী হওয়া উচিৎ। প্রার্থী ও দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতিটি ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ ও সহয়োগি সংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে প্রতিটি গ্রাম মহল্লায় বাড়িবাড়ি গিয়ে প্রচারণা ও ভোটের নির্বাচনী আমেজকে জাগ্রত করাই হলো জনগণের চাওয়া। জনগন সঠিক নেত্রীত্ব বলতে বোঝেন, কতটুকু জনগনের নিকট প্রার্থী এসে তাহার ব্যক্তিত্ব ও ভবিষ্যতে সেবামুলক উন্নয়ন কাজ করবেন তা ফুটিয়ে তোলা।

সোনাতলা উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নে হেভিওয়েট প্রার্থীকে নৌকা প্রতীক না দেয়ার কারনে অনাকঙ্খিত ভরাডুবির আশঙ্কা করছেন অনেকেই। তবে সেসব জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে নৌকা বিজয় সুনিশ্চিত করাই হবে হেভিওয়েট নেতাদের নিজ ওয়েট সম মূ উন্নত রাখতে করনীয়। দলকে যারা সু-সংগঠিত করলো এবং নৌকা প্রতীকে ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে বিগত ৫ বছর সুনামের সাথে সাধারণ মানুষগুলোর সেবা করলো তারা চায় প্রার্থী যেই হোক নৌকার বিজয় মানেই হলো তাদের বিজয়। যদি এর ব্যতিক্রম মনোভাবনা কারো থাকে তবে তা হবে লোভ ও ক্ষোভ। প্রতিবারই যে নৌকা মনোনয়ন পেতে হবে তা যুক্তযুক্ত বিষয় নয়! এবার পায়নি পরের বার পাবে, অন্যকেও সুয়োগ দেওয়া প্রয়োজন । মনোনয়ন বঞ্চিত বলে কিছু নেই, একটি অবকাঠামোর পরিবর্তন মাত্র। দলীয় পদে কাউকে বঞ্চিত করা হয় নি। মুল্যায়ন হবে নিজের ধর্য্য ও অবকাঠামোগত নিয়মশৃঙ্খলা অনুয়ায়ী।

উপজেলার সোনাতলা সদর, জোড়গাছা , তেকানী চুকাইনগর, দিগদাইড় , পাকুল্লা , বালুয়া , মধুপুর কোনো আ.লীগ নেতা বা চেয়ারম্যানপ্রার্থী নৌকার বিপক্ষে নয় এবং তারা দলীয় শিদ্ধান্ত এবং জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের শিদ্ধান্তে স্হানীয় আওয়ামী লীগ এর সিদ্ধান্তে নৌকা বিজয়েই কাজ করে চলেছেন। দল যাকে ভালো মনে করেছেন তাকেই মনোনয়ন দিয়েছেন এ নিয়ে কোনো অভিযোগ নেই। পরবর্তী নির্বাচনে সততা,উন্নয়নের ধারা, ত্যাগী ও যোগ্য মনে হলে তারা নৌকা পেতে পারেন।

স্হানীয় কিছু কুচক্র মহল বিভিন্নভাবে ইউনিয়ন এর নৌকা প্রতিক প্রাপ্ত নেতাদের নিয়ে সমালোচনা ও গুজব রটানো শুরু করেছেন তা মোটেও সমিচিন নহে। এ ধরনের কার্যকলাপ একজন ত্যাগীনেতার ব্যক্তিগত সম্ভ্রম হরনের একটি অপচেষ্টা। অকথ্য কুকথ্য ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য মোটেও শোভা বর্ধক নহে। অনেকের মতে, অনিয়মতান্ত্রিক ও সাংগঠনিক অবকাঠামোর বাহিরে যারা এ ধরনের কার্যকলাপে যুক্ত তাদের পারিবারিক আচরণ গত শিক্ষার অভাব হিসাবেই বিবেচিত বিষয় বলে মনে করেন।

আবার অনেকের মুখেই জানা যায়, সমালোচনা হবে তাই বলে অসত্য পুরোনো বিষয়ে বিকৃত ঘটিয়ে মৌখিক শত্রুপক্ষের কথায় ব্যক্তিগত হ্যারেজমেন্ট কোনো যুক্তিযুক্ত বিষয় নহে এটা একটি কাল্পনিক গল্পের মত যার কোনো যথোপযুক্ত তথ্য নেই ও ভিত্তিহীন। জনগন কখনোই এধরণের গুজবে কর্নপাত করে না। এ ধরনের হয়রানী ও ব্যক্তিগত সম্ভ্রম হরণ একটি জঘন্যতম অপরাধ বটে। এমনকি কুৎসা রটানোর পরও প্রার্থীকে নিয়ে অনেকেই বেনামী লাইসেন্স বিহীন বই বের করে হয়রানী ও ব্যক্তিগত সম্ভ্রান্ত হরণের চেস্টা করা হচ্ছে। যেখানে কোনো তালিকা ভূক্ত গেজেটে নাম নেই অথচ আক্রমণ করা হচ্ছে ব্যক্তিগত লাঞ্চিত ও সম্ভ্রম হরণের। জনগন বিষয়টি অত্যান্ত দূঃজনক এবং অযোগ্য বলার কারণ খুজে পায়নি বলেই মন্তব্য করেন। অনেকে কুৎসা রটিয়ে হাস্য ও মনোরঞ্জন করায় মরিয়া। ত্যাগী নেতাদের কটুক্তি, অসত্য, অনিয়মিত তান্ত্রিকভাবে ও কুৎসা রটিয়ে সম্ভ্রম হরণ করা সাংবাদিক মহলের কাজ নয়, এটা কুচক্রী মহলের কাজ বলেই অনেক প্রার্থীদের মন্তব্য।

সর্বশেষ পরিস্থিতি অনুযায়ী জেলা, উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহয়োগি সংগঠনের নেতাকর্মীগন ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ ও সহয়োগি সংগঠনের প্রতি দৃষ্টিপাত একান্ত কাম্য। নৌকা প্রতিকে প্রার্থীগন আ.লীগ ও সহয়োগি সংগঠনের সহয়োগিতা কামনা করেন এবং জনগনের সেবা ও জননেত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানে প্রয়াত সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান বগুড়া-১ ও তাহার সহধর্মিণী জনাব শাহাদারা মান্নান শিল্পী এমপি এর উন্নয়ন এর ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে জনগণের নিকট নৌকায় ভোট প্রত্যাশায় উন্নয়ন ও সেবা করার সুয়োগ চান।

 

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।