ঢাকাSaturday , 30 April 2022
  1. Engineering
  2. অপরাধ
  3. অর্থনীতি
  4. আইন আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আবহাওয়া ও দূর্যোগ
  7. ইসলাম
  8. উন্নয়ন
  9. কবিতা
  10. কুরআন/সূরা
  11. কৃষি
  12. কোভিড-১৯
  13. খেলাধুলা
  14. গনমাধ্যম
  15. জব
বিজ্ঞাপনঃ আপনি স্ববলম্বি হতে চান? ১০০% নিশ্চয়তায় দৈনিক আয় করতে telegram এ যোগাযোগ করুন, +85295063265 @krakenvip01' বা, @kraken_Asst     
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সন্তানকে সফল মানুষ হতে সাহায্য করবে যে সমস্ত গুণাবলী

Link Copied!

সন্তানকে সফল মানুষ হতে সাহায্য করবে যে সমস্ত গুণাবলী

আপনার শাসনে এমন হওয়া উচিত যার মাধ্যমে পরবর্তী বার কিভাবে আরো ভালো করা যায় সে ব্যাপারে শিশু অবগত হবে। এর মাধ্যমে শিশুর ভুলগুলো তার শিক্ষার সুযোগ হিসেবে ব্যবহৃত হবে। এখানে সফল মানুষের ৬ টি গুণাবলীর কথা উল্লেখ করা হয়েছে যেগুলো আপনার শিশুর অভ্যাসের মধ্যে গড়ে তোলা উচিত। এতে করে তার ভবিষ্যতে মঙ্গল হবে।

১. আত্মনির্ভরশীলতা: শিশুর বাড়ির কাজ করানোর জন্য তার পেছনে পড়ে থাকা, তাকে বাসার কোন কাজ করতে না দেওয়া কিংবা সব সময় শিশুকে কঠিন কাজ থেকে দূরে সরিয়ে রাখলেই শিশু কখনো আত্মনির্ভরশীলতা শিখবে না। আপনার শিশুর অধিকাংশ কাজ যদি আপনি করে দেন তাহলে উলটো আপনার শিশুর নির্ভরশীলতা বাড়বে। এজন্য তাকেও তার নিজের কাজের কিছু অংশ হিসেবে করতে দিন।

২. সামাজিক দক্ষতা: ভালো সামাজিক দক্ষতা একটি দুর্লভ গুণ। শিশুর স্কুলে এমনকি যখন সে পূর্ণাঙ্গ পরিণত মানুষ হয়ে উঠবে তখন ও এই গুণটি তাকে অন্যদের তুলনায় উঁচুতে স্থান দেবে। অভিভাবকদের থেকে প্রচুর সহায়তা এবং অভ্যাসই পারে শিশুর মাঝে এই অসাধারণ গুণ গরে তুলতে।

৩. সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা: কোন একটি সমস্যা বড়রা যে দৃষ্টিতে দেখে শিশুরা সেগুলো একই দৃষ্টিতে নাও দেখতে পারে। তাই তাদের মধ্যে কোন সমস্যা কিভাবে সমাধান করতে হয় সে দক্ষতা থাকতে হবে এবং এজন্য নিজের সিদ্ধান্ত নিজে নেওয়ার অনুশীলন করতে হবে। আপনার শিশু যখন কোনো সমস্যার মুখোমুখি হবে দুজনে মিলে বসুন তাকে সিদ্ধান্ত নিতে সহায়তা করুন।

৪. প্রবৃত্তি নিয়ন্ত্রণ: শিশু যখন ধীরে ধীরে বড় হতে থাকে, প্রবৃত্তি নিয়ন্ত্রণের গুণটাও তার বৃদ্ধি পেতে থাকে। সঠিক সময়ে সঠিকভাবে শাসন শিশুর এই গুণ বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। শিশুকে তার ভালো কাজের জন্য প্রশংসা ও তার প্রবৃত্তি নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।

৫. আবেগ নিয়ন্ত্রণ: শিশুর আবেগ নিয়ন্ত্রণ এর মতো গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপারটিতে অনেক অভিভাবকেরাই উপেক্ষা করে থাকেন। শিশু যখন নিজের অভিব্যক্তি ভাষায় প্রকাশ করতে পারে না কিংবা অপ্রস্তুত কোন পরিস্থিতিতে পড়ে যায় তখন তারা রেগে যায় এবং আগ্রাসী হয়ে ওঠে। শিশুকে ছোটবেলা থেকেই তার আবেগ নিয়ন্ত্রণ এর ব্যাপারে সচেতন করা উচিত।

৬. আত্মবিশ্বাস: শিশুর আচরণ নিয়ন্ত্রণে অভিভাবকদের ধারাবাহিকতা মেনে চলায় পারে শিশুর মাঝে আত্মসম্মান এবং আত্মবিশ্বাসের বীজ বপন করে। যখন শিশু আত্মবিশ্বাসী হয়ে ওঠে তখন তার মধ্যে অন্যান্য আরো গুণ যেমন- ভুল থেকে শিক্ষা নেওয়া, সমালোচনা মেনে নেওয়া, ভয়কে মোকাবেলা করা প্রভৃতি বিকাশ পায়। এছাড়াও প্রভৃতি শিক্ষাদিক্ষায় শিশুকে আলোকিত করা উচিৎ।

সূত্র : Baby_health_news_24, ছবিঃ সংরক্ষিত।

 

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।